Saturday, 31 October, 2020 খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

কমলগঞ্জের সেই দুর্গা মন্দিরে ঢালাই ভেঙ্গে ফেলার নির্দেশ দিলেন নির্বাহী প্রকৌশলী


কাগজ রিপোর্ট:
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শমসেরনগর চা বাগানের নির্মানাধীন দুর্গা মন্দিরের অনিয়মের খবর শুনে ছুটে আসলেন মৌলভীবাজার এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী আজিম উদ্দীন সরদার। তিনি সরেজমিনে এসে মন্দিরের ছাদ ঢালাই কাজে ক্রুটি পান এবং সম্পন্ন ছাদের ঢালাই ভেঙ্গে পুর্নরায় ছাদ ঢালাই করার নির্দেশ দেন সংশিষ্টদের। শুক্রবার বিকাল ৬ টায় সাংবাদিকদের কাছ থেকে মন্দিরের ছাদের ঢালাই ভেঙ্গে পড়ার সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল পরির্দশন করেন। উল্লেখ্য যে, কমলগঞ্জ উপজেলার শমসেরনগর চা বাগানে এলজিইডির আওতাধিন ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মানাধীন দুর্গা মন্দির এর কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। নিম্মমানের কংক্রিটের কুয়া ,রড দিয়ে ছাদ ঢালাই করা সময় ছাদের মধ্যখানের সার্টানিং ভেঙ্গে বিশাল অংশ ধসে পড়ে। বুধবার ১ জুলাই রাতে দুর্গা মন্দিরের ছাদ ঢালাই শেষে এ ঘটনাটি ঘটে। এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতাধিন ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে দুর্গা মন্দিরে কাজ পান মৌলভীবাজারের ঠিকাদারী প্রতিষ্টান শিপা এন্টার প্রাইজ। বুধবার ্ সন্ধ্যায় মন্দিরের ছাদ ঢালাই সম্পন্ন হবার আধা ঘন্টার মধ্যে ছাদের মধ্যখানে একটি অংশের সেন্টারীং ধসে পড়ে। খবরটি ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়। স্থানীয় উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী রাকিবুল হাসান এর সহযোগীতায় ঠিকাদার দ্রুত ভেঙ্গে পড়া ছাদ মেরামতের উদ্যোগ নেন। সাংবাদিকদের কাছ থেকে ছাদ ভেঙ্গে পড়ার খবর পেয়েই মৌলভীবাজার এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী আজিম উদ্দীন সরদার দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। বিকাল ৬টায় সরেজেিমন আসলে উপস্থিত ঠিকাদার ও সহকারী প্রকৌশলী নির্বাহী প্রকৌশলীকে দেখে চমকে চান। তিনি মন্দিরের কাজ পরির্দশন করেন এবং মন্দিরের কাজে ত্র“টি হয়েছে বলে উল্লেখ্য কাজ বন্ধ রাখতে সহকারী প্রকৌশলীকে নির্দেশ দেন। এবং ঢালাইকৃত ছাদটি ভেঙ্গে ফেলে নতুন ভাবে ঢালাই করার নির্দেশ দেন। অথচ সাইটে দায়িত্বরত স্থানীয় উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী রাকিবুল ইসলাম মন্দিরে কোন অনিয়ম হয়নি বলে দাবী করে ছিলেন।
আলাপকালে মৌলভীবাজারের এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী আজিম উদ্দীর সরদার বলেন, মন্দিরের কাজে ক্রুটি রয়েছে। দ্রুত উপজেলা ও জেলা অফিসের তদারকিতে পুনরার্য় মন্দিরের ঢালাই কাজ করা হবে।

এলজিইডি সূত্র জানা যায়, সার্বজননী সামাজিক অবকাঠামো প্রকল্পের আওতাধিন মৌলবীবাজার জেলা এলজিইডি বিভাগ স্থানীয় এমপির বরাদ্ধকৃত ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে শমসেরনগর দুর্গা মন্দির নিমার্ণ করার জন্য টেন্ডার আহবান করা হয়। কমলগঞ্জ উপজেলা এলজিউডি বিভাগের তত্তাবধানে মন্দিরের কাজ চলছিল। দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে ঠিকাদারের সখ্য তার ও গাফলতিতে এমন কাজ হয়েছে বলে বাগানের চা শ্রমিক নেতৃবৃন্দ মনে করছেন।

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by :