Friday, 14 August, 2020 খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

বাড়িতে ফেরা হলো না: কমলগঞ্জের ব্র্যাক ম্যানেজারসহ স্বপরিবারে নিহত

প্রাইভেট কারে কমলগঞ্জের আদমপুর থেকে সুনামগঞ্জ যাওয়া পথে এক মমার্ন্তিক সড়ক দুঘটর্নায় নিহত হয়েছেন কমলগঞ্জের আদমপুর ব্র্যাক ইউনিট ম্যানেজার স্বপন কুমার,তার স্ত্রী লাভলী রানী, দুই ছেলে ও প্রাইভেট কারের চালক হাসিম মিয়াসহ ৫জন। তারা ঈদের ছুটিতে কমলগঞ্জ থেকে দিরাই যাচ্ছিলেন।
 নিহতের একজনের বাড়ি কমলগঞ্জের গোবিন্দপুর গ্রামে ও বাকী ৪জনের বাড়ি দিরাই এলাকায়। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ওসমানী হাসপাতালে প্রেরন করেছে। শুক্রবার (৩১ জুলাই) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ওসমানীনগর উপজেলার লামা তাজপুরের তানপুর এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।
জানা যায়, কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিট ম্যানেজার স্বপন কুমার স্ব পরিবারে ভানুগাছ বাজার স্ট্যান্ড থেকে প্রাইভেট কার( গাড়ি নং মৌলভীবাজার ১১১২২৩) ভাড়া করে শুক্রবার সকাল ৬টায় আদমপুর থেকে সুনামগঞ্জের উদ্যেশ্য রওয়ানা দেন।  সুনামগঞ্জ যাওয়ার পথে সিলেট – ঢাকা মহাসড়কের ওসমানীনগর থানার তাজপুর লামা এলাকায় বিপরিত মুখী একটি বাসের সাথে সংঘর্ষে প্রাইভেটকারটি গাড়ির নিচে ডুকে পড়ে। এতে গাড়ির ভিতরই ব্র্যাক ম্যানেজার স্বপন কুমার(৪৫) তার স্ত্রী লাভলী রানী দাস,(৩৫) বড় ছেলে সৌরভ দাস(১০), মেঝ ছেলে স্বাধীন দাস ও প্রাইভেট কার চালক হাসিম মিয়া (৪৫) ঘটনাস্থলই মারা যান।নিহতের মধ্য গাড়ি চালকের বাড়ি কমলগঞ্জের গাবিন্দপুর গ্রামে।  বাকী ৪জনের বাড়ি সুনাম গঞ্জ দিরাই।নিহত স্ব্পন কুমারের ছোট ছেলেকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। খবর পেয়ে ওসমানীনগর উপজেলার ফায়ার সার্ভিস দল ও হাইওয়ে পুলিশ দল কার কেটে নিহতের লাশ উদ্ধার করা হয়  ওসমানী হাইওয়ে পুলিশের ওসি মায়ুনুল ইসলাম জানান। লাশ ময়না তদন্তে শেষ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।
কমলগঞ্জের নিহত গাড়ি চালক হাসিমের স্ত্রীর ভাই জলিল মিয়া জানান, সকাল ৬টায় হাসিম বাড়ি থেকে বের হয়। তার এক মেয়ে ও দুই ছেলে রয়েছে। ঈদের আগের দিন এমন ঘটনায় সবাই হতবাক। পরিবারে চলছে শোকের মাতম। লাশ আনতে সিলেট রওয়ানা দিয়েছেন।

Developed by :